বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২:২৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
দালাল-বেঈমানের জন্মদাতা কুখ্যাত ইব্রাহিমকে পাহাড়ি জনগণ কখনই ক্ষমা করবে না! টেকনাফে আদালতের আদেশ অমান্য করে জমি দখলের চেষ্টা খাগড়াছড়িতে অটোরিকশা চালকের গলাকাটা লাশ উদ্ধার থানচি বাজার সড়কের বেহাল দশা, জনদুর্ভোগ চরমে ফিলিস্তিন সংকট:বেসামরিক নাগরিকদের গাজা ত্যাগের জন্য সময় নির্ধারণ করাই ইসরাইলের উদ্দেশ্য কুতুবদিয়ায় গলায় ফাঁস দিয়ে স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা ইসরায়েল থেকে রাষ্ট্রদূত প্রত্যাহার করলো তুরস্ক মাস্ক পরে অনুশীলনে বাংলাদেশ, দিল্লিতে ম্যাচ নিয়েও শঙ্কা গর্জনিয়ায় পানিতে ডুবে হেফজখানার ছাত্রের মৃত্যু পাকিস্তানের বিপক্ষে নিউজিল্যান্ডের রানের পাহাড়

আইন ভঙ্গে সহায়তা করায় কক্সবাজারে আইনজীবীকে আদালতের তলব

ডেস্ক রিপোর্ট
  • প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩
  • ৩৭ পঠিত

একটি আদালতে মামলা খারিজ হওয়ার পর তথ্য গোপন করে একই বিষয়ে ভিন্ন আদালতে মামলা করায় আইনজীবী ও নালিশকারীকে সশরীরে হাজির হয়ে ৭ দিনের মধ্যে ব্যাখ্যা প্রদানের নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক। শেষ সঙ্গে মামলাটি আমলযোগ্য না হওয়ায় খারিজ করে দিয়েছেন আদালত।

বুধবার (১ ফেব্রুয়ারি) সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলী আদালত (সদর) এ মামলা নং-১৪৯/২৩ পর্যালোচনা শেষে বিচারক মোহাম্মদ আবুল মনসুর সিদ্দিকী এই নির্দেশ প্রদান করেছেন।

অভিযুক্তরা হলেন, এডভোকেট মোক্তার আহমদ ও নালিশকারী নুরুল আলম সিকদার।

মামলার নথি পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, গত ২০ জানুয়ারি মানহানির ঘটনা দেখিয়ে জাহাঙ্গীর আলম, সাইফুল ইসলাম, মোজাহের মিয়া, শাহ নেওয়াজ ও মো. রাশেদুল ইসলামের বিরুদ্ধে টেকনাফ আমলী আদালতে মামলা করেন নুরুল আলম সিকদার নামক এক ব্যক্তি। যার মামলা নং-সিআর ৪০/২৩। শুনানি শেষে মামলাটি খারিজ করে দেয় আদালত। এরপরে ঘটনাস্থল পরিবর্তন করে একই বিষয়ে একই আইনজীবীর মাধ্যমে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (সদর) আদালতে আরেকটি মামলা করেন নুরুল আলম সিকদার। যার মামলা নং-১৪৯/২৩।

এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন কক্সবাজার জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের নাজির এম.এ.ই শাহজাহান নুরী।

দুইটি মামলার নালিশী দরখাস্ত পর্যালোচনা করে আদালত জানায়, মামলা দুইটিতে ঘটনাস্থলের ভিন্নতা ছাড়া মামলায় অপরাধের অভিযোগের ধারা, ঘটনার তারিখ, ঘটনার বিবরণ হুবহু মিল রয়েছে। নালিশকারী এবং তার পক্ষে নিয়োজিত আইনজীবীও একই। অর্থাৎ একই ঘটনা নিয়ে একই অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কেবল ঘটনাস্থল পরিবর্তন করে ভিন্ন ভিন্ন আঞ্চলিক এখতিয়ার সম্পন্ন আদালতে নালিশকারী ২টি মামলা করেছেন।

নালিশকারী শপথ নিয়ে আদালতে মিথ্যা সাক্ষ্য দিয়েছেন, যা ফৌজদারি অপরাধ।

উল্লেখ্য যে, ভিন্ন ভিন্ন আদালতে মামলা দায়ের হলেও নালিশকারীপক্ষের বিজ্ঞ আইনজীবী The Bangldesh Legal Practitioner and Bar Counsil Act, 1972 এর ক্ষমতাবলে প্রণীত The Canons of Professional Conduct and Etiquette এর ২য় অধ্যায়ে মক্কেল ও আদালতের প্রতি আইনজীবীর দায়িত্ব সম্পর্কে বলা হয়েছে। উক্ত আচরণবিধির ২য় অধ্যায়ে মক্কেলের প্রতি দায়িত্ব বলতে কোনরূপ আইনভঙ্গের পরামর্শ না দেয়া এবং ৩য় অধ্যায়ে আদালতের প্রতি দায়িত্ব হিসেবে আদালতে ভুল তথ্য না দেয়ার বিষয়ে বলা হয়েছে।

কিন্তু নালিশকারী পক্ষে নিয়োজিত আইনজীবী মোক্তার আহমদ একই নালিশকারীর পক্ষে একই বিষয়ে একই অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ঘটনাস্থল পরিবর্তন করে এবং অন্য আদালতে ইতোপূর্বে দায়েরকৃত সিআর মামলা নং-৪০/২৩ খারিজের তথ্য গোপন করেছেন। আদালতকে ভুল তথ্য দিয়েছেন। মক্কেলকে আইন ভঙ্গের সহায়তা করেছেন, যা একজন আইনজীবী হিসেবে আচরণবিধির সুস্পষ্ট লঙ্ঘন।

এমতাবস্থায়, ন্যায় বিচারের স্বার্থে কেন আইনজীবী ও নালিশকারীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না, তা আগামী ৭ দিনের মধ্যে সশরীরে আদালতে হাজির হয়ে ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Let's check your brain 18 − 9 =

একই ধরনের আরও সংবাদ
© All rights reserved 2022 CHT 360 degree