রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৩:০৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
দালাল-বেঈমানের জন্মদাতা কুখ্যাত ইব্রাহিমকে পাহাড়ি জনগণ কখনই ক্ষমা করবে না! টেকনাফে আদালতের আদেশ অমান্য করে জমি দখলের চেষ্টা খাগড়াছড়িতে অটোরিকশা চালকের গলাকাটা লাশ উদ্ধার থানচি বাজার সড়কের বেহাল দশা, জনদুর্ভোগ চরমে ফিলিস্তিন সংকট:বেসামরিক নাগরিকদের গাজা ত্যাগের জন্য সময় নির্ধারণ করাই ইসরাইলের উদ্দেশ্য কুতুবদিয়ায় গলায় ফাঁস দিয়ে স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা ইসরায়েল থেকে রাষ্ট্রদূত প্রত্যাহার করলো তুরস্ক মাস্ক পরে অনুশীলনে বাংলাদেশ, দিল্লিতে ম্যাচ নিয়েও শঙ্কা গর্জনিয়ায় পানিতে ডুবে হেফজখানার ছাত্রের মৃত্যু পাকিস্তানের বিপক্ষে নিউজিল্যান্ডের রানের পাহাড়

আশার আলো দেখালো পেট্রোলিয়ামের দরপতন

রিপোর্টারঃ
  • প্রকাশিত: রবিবার, ২৪ জুলাই, ২০২২
  • ৪৭ পঠিত

অপরিশোধিত তেলের দরপতন আশা দেখাচ্ছে সংকটে থাকা বিশ্ববাজারকে। বাজার বিশ্লেষকরা মনে করছেন, এভাবে দাম নিয়ন্ত্রণে থাকলে দেশের বাজারেও তেলের দাম বাড়ানোর দরকার হবে না। পেট্রোলিয়াম করপোরেশন বিপিসি জ্বালানির দাম বাড়ানোর সুপারিশ করেছিল। কিন্তু সরকার দাম না বাড়িয়ে সাশ্রয়ের নীতি নিয়েছে।

শনিবার (২৩ জুলাই) বিশ্ববাজারে অপরিশোধিত তেলের দাম কমে ব্যারেল ৯৪ ডলারে দাঁড়িয়েছে। গত ৮ মার্চ সর্বোচ্চ ১১৯ ডলার ৬৫ সেন্টে উঠেছিল তেলের দাম।

আন্তর্জাতিক বাজারে জুনের দ্বিতীয় সপ্তাহে তেলের দাম কিছুটা বাড়ে। এরপর আবার কমতে শুরু করে জুলাইয়ের শুরু থেকেই।

সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সৌদি আরব সফর তেলের দাম নিয়ন্ত্রণে আনতে বিশেষ ভূমিকা রাখবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এছাড়া, খাদ্য সরবরাহে জাতিসংঘের উপস্থিতিতে তুরস্কের সঙ্গে রাশিয়া ও ইউক্রেনের চুক্তিও নতুন আশা দেখাচ্ছে।

জ্বালানি বিভাগের একাধিক সূত্র বলছে, যেহেতু তেল ব্যবহারে সরকার সাশ্রয়ী নীতি নিয়েছে, তাই দাম বাড়ানোর যে আলোচনা হচ্ছিল তা থেমে গেছে। জনগণ সরকারের সংকট সামাল দিতে নেওয়া উদ্যোগে দারুণ সাড়া দিয়েছে।

বিদ্যুৎ বিভাগ বলছে, শুধু রাত ৮টায় দোকান বন্ধের সিদ্ধান্ত কার্যকর হওয়ায় দিনে ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সাশ্রয় হচ্ছে।

আপাতত ডিজেলচালিত বিদ্যুৎকেন্দ্রও বন্ধ রেখেছে সরকার। গত বছর ডিজেলচালিত বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো ৫ ভাগ প্ল্যান্ট ফ্যাক্টরে চলেছে। চলতি বছর পিডিবি ১৬ ভাগ প্ল্যান্ট ফ্যাক্টরে চালানো হবে বলে জানিয়েছিল। যদিও এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) ১১ ভাগ প্ল্যান্ট ফ্যাক্টরে চলবে বলে উল্লেখ করেছিল। এখন সেগুলো একদমই চালানো হচ্ছে না।

বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ সম্প্রতি জানিয়েছেন, ডিজেলচালিত বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো ১০ ভাগ জ্বালানি ব্যবহার করে। সেই হিসাবে বার্ষিক ডিজেলের চাহিদা ৫০ লাখ টন হলে বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো ৫ লাখ টন ব্যবহার করে।

জ্বালানি বিভাগ সূত্র বলছে, জ্বালানি আমদানির বড় সমস্যা— তেল আমাদানি করতে বৈদেশিক মুদ্রার প্রয়োজন হয়। সম্প্রতি তেল আমদানির এলসির জন্য ডলার দিতে চাচ্ছিল না ব্যাংকগুলো। পরে সরকারের উচ্চপর্যায়ের হস্তক্ষেপে বিষয়টির সমাধান হয়।

বিপিসির কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, তারা তেলের দাম বাড়ানোর জন্য সরকারের কাছে সুপারিশ করেছিল। কিন্তু এরপর আর এ বিষয়ে কিছু জানানো হয়নি।

বিপিসি সরকারের কাছে পাঠানো প্রতিবেদনে জানিয়েছিল, তাদের প্রতিদিন ১০০ কোটি টাকার লোকসান হচ্ছে। তবে আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের দাম কমায় লোকসানের হিসাবেও আসবে পরিবর্তন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Let's check your brain − 1 = 1

একই ধরনের আরও সংবাদ
© All rights reserved 2022 CHT 360 degree