শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৬:৩০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
দালাল-বেঈমানের জন্মদাতা কুখ্যাত ইব্রাহিমকে পাহাড়ি জনগণ কখনই ক্ষমা করবে না! টেকনাফে আদালতের আদেশ অমান্য করে জমি দখলের চেষ্টা খাগড়াছড়িতে অটোরিকশা চালকের গলাকাটা লাশ উদ্ধার থানচি বাজার সড়কের বেহাল দশা, জনদুর্ভোগ চরমে ফিলিস্তিন সংকট:বেসামরিক নাগরিকদের গাজা ত্যাগের জন্য সময় নির্ধারণ করাই ইসরাইলের উদ্দেশ্য কুতুবদিয়ায় গলায় ফাঁস দিয়ে স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা ইসরায়েল থেকে রাষ্ট্রদূত প্রত্যাহার করলো তুরস্ক মাস্ক পরে অনুশীলনে বাংলাদেশ, দিল্লিতে ম্যাচ নিয়েও শঙ্কা গর্জনিয়ায় পানিতে ডুবে হেফজখানার ছাত্রের মৃত্যু পাকিস্তানের বিপক্ষে নিউজিল্যান্ডের রানের পাহাড়

‘কেএনএফ’ সশস্ত্র সংগঠনের প্রধান নাথান বমের উত্থান ও বিলাসী জীবন

ডেস্ক রিপোর্ট
  • প্রকাশিত: সোমবার, ৩০ জানুয়ারী, ২০২৩
  • ২৫ পঠিত

পার্বত্য চট্টগ্রামে আলোচনার কেন্দ্রে রয়েছে পাহাড়ে নতুন আবির্ভাব হওয়া সশস্ত্র সংগঠন কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের (কেএনএফ) প্রধান ও কেএনডি এর সভাপতি নাথানা লনচেও প্রকাশ নাথান বম (৪৫)।

নাথান বম বান্দরবান জেলার রুমা উপজেলার ২ নম্বর রুমা সদর ইউনিয়নের ইডেনপাড়ার বাসিন্দা জুমচাষী মৃত জাওতন লনচেও এর ছেলে। মা মৃত রৌকিল বম গৃহিনী। ৫ ভাই ও ১ বোনের মধ্যে তিনি ছোট।

নাথান বম পার্বত্য চট্টগ্রাম জন সংহতি সমিতি (পিসিজেএসএস) সন্তু গ্রুপের পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (পিসিপি) যোগ দেওয়ার কারণে পড়াশোনার দায়িত্ব নেন সন্তু লারমা। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগ থেকে বিএ অনার্স, এমএ পাশ করেন। এছাড়া লন্ডন থেকে আর্কিটেকচার বিষয়ে ডিপ্লোমা ডিগ্রি অর্জন করেন তিনি।

স্থানীয় জনগোষ্ঠী জানায়, নাথান বম দরিদ্র পরিবারের সন্তান ছিল। তারা দিনে এনে দিনে খাওয়ার মতো পরিবার। পরিবারের ভরণপোষণের জন্য তার বাবার পাশাপাশি বড়ভাই জোয়াম লিয়ান বম (৬২) ইলেকট্রিশিয়ানের কাজ করতেন। চতুর্থ ভাই রপুই বম পেশায় জুম চাষী হলেও সে কেএনএফ সদস্য বলে জানা যায়। নাথান বমদের পরিবার অনেক বড়। পরিবারের এতো সদস্যের আহার যোগাতে নাথান বমকেও মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরতে হয়েছিল। নাথান বম স্থানীয় সেনা ক্যাম্প, জোন ও বিগ্রেডে সাহায্যের জন্য যেতেন।

তবে নাথান বমের জীবন পরিবর্তন হয়ে যায় সন্তু লারমা তার পড়াশোনার দায়িত্ব নেওয়া এবং পিসিপিতে সক্রিয়ভাবে যোগ দেওয়ার পর। এতে পরিবারের অনেক সদস্য সরকারি চাকরি পান।

নাথান বমের স্ত্রী লাল সমকিম বম রুমা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নার্স হিসেবে যোগ দেন। পারিবারিক জীবনে স্ত্রীর পাশাপাশি তার দুইটি শিশু সন্তান রয়েছে। তারা হলেন- স্কেলার বম (৬) (শিশু শ্রেণি, রুমা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়) ও স্কেন্দি বম (৩)।

বর্তমানে তিনি প্রায় ২ কোটি টাকা খরচ করে পাঁচতলা ফাউন্ডেশন দিয়ে একটি বিলাসবহুল ভবন তৈরি করছেন। জঙ্গি কাজে লিপ্ত হয়ে ও সন্তু লারমার অর্থ সহযোগিতা নাথান বমকে উচ্চবিলাসী করে এবং বেপরোয়া জীবন থেকে সন্ত্রাসী সংগঠন তৈরি ও বিচ্ছিন্নতাবাদের দিকে ধাবিত করে।

সূত্র জানা যায়, নাথান বম বৈদেশিক দাতাসংস্থা, মিশনারি ও এনজিও এর প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় বিচ্ছিন্নতাবাদী সন্ত্রাসী সংগঠন কেএনএফ গঠন করতে সক্ষম হয়। সন্ত্রাসী কার্যক্রম পরিচালনা করে ও চাঁদা আদায় করে চাঁদার টাকা দিয়ে মিজোরামে সে একটি বাড়ি তৈরি করেছে বলে বাস্তব প্রমাণ মেলে। এছাড়াও নাথান বম এর কর্মজীবন ও রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড ছিল সবসময় উচ্ছৃঙ্খল স্বভাবের।

জানা যায়, স্কুল জীবন থেকে পিসিপি রাজনীতির প্রতি দুর্বল ছিলেন। ঢাকা কলেজে অধ্যায়নকালে ঢাকা মহানগর পিসিপি শাখার সদস্য এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যায়নকালে কেন্দ্রীয় পিসিপির অন্যতম সক্রিয় সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। নাথান বম সন্তু লারমার খুবই আস্থাভাজন ছিলেন। সন্তু লারমার নির্দেশে জেএসএস ও তার সহযোগী অঙ্গসংগঠন পিসিপি সংগঠন থেকে তার পড়াশোনার খরচের যোগান দেয়া হতো বলে জানা যায়।

এসময় তিনি সন্তু লারমার আদর্শে দিনে দিনে বাঙালি ও সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে মনোভাব পোষণ করে গড়ে উঠে। তার মধ্যে লালন ও সৃষ্টি হয় বাঙালি ও সেনাবাহিনীর প্রতি হিংসা ও বিরূপ ধারণা ও ঘৃণার মনোভাব। তিনি চারুকলা বিষয়ে ডিগ্রীধারী হিসেবে খাগড়াছড়ি জেলার চেঙ্গী স্কোয়ারের পাশে নির্মিত তথাকথিত জুম্ম জাতির পিতা এম এন লারমার ভাস্কার্যটি (ম্যুরাল) তৈরির অন্যতম কারিগর ছিলেন। একাজের জন্য তিনি পিসিজেএসএস সভাপতি সন্তু লারমা তাকে ভূয়সী প্রশংসা করেন বলে জানা যায় এবং তাকে এ পর্যায়ে আসতে ভূমিকা পালন করেন। তৎকালীন এ কাজের পারিশ্রমিক ও সম্মান হিসেবে সন্তু লারমা নাথান বমকে কোটি টাকা পুরষ্কৃত করেন। যার কারণে নাথান বম এর পৃষ্ঠপোষক বলা হয় সন্তু লারমাকে।

কেএনডি গঠন

জানা যায়, আনুমানিক ২০০৮ সালে তিনি নিজস্ব বম জাতিসহ ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র জাতিসত্তার উন্নয়ন কল্পে বাংলাদেশ সরকারের কাছে বিভিন্ন দাবি পেশ করেন। এ প্রেক্ষাপটে তিনি নিজেকে সভাপতি করে রুমা উপজেলা সদরে কেএনডি ও কুকি-চিন ন্যাশনাল ডেভলোপমেন্ট অরগানাইজেশন) নামে সমাজ কল্যাণমূলক একটি সেন্ট্রাল প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেন। পরবর্তীতে গত ২৮ জুন ২০১৫ খ্রিস্টাব্দে রুমা উপজেলা সমাজসেবা অধিদপ্তর থেকে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন নামে রেজিস্ট্রেশন করা হয়, যার নিবন্ধন ২৬৬/২০১৫ বলে জানা যায়।

কেএনএফ গঠন

২০১৭ সালে সংগঠনটির খোলসের আঁড়ালে নাথান বম নিজকে সভাপতি করে ধীরে ধীরে কেএনএফ নামে একটি সশস্ত্র দল/ সংগঠন গঠন করেন। এ সংগঠনের মূল লক্ষ্য উদ্দেশ্য পার্বত্য চট্টগ্রামের সীমান্তবর্তী অঞ্চল সমূহে (অন্ততঃ ১১ টি উপজেলা) নিয়ে একটি পৃথক রাষ্ট্র/ জৌ-ল্যান্ড গঠন করা।

জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ গ্রহণ

জানা যায়, নাথান বম ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র জাতিসত্বার (অন্ততঃ ৬টি উপজাতি) প্রতিনিধি হিসেবে ২০১৮ সালে বান্দরবান সংসদীয় আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণের জন্য বান্দরবান জেলা নির্বাচন অফিসে মনোনয়ন ফরম জমা দেন। কিন্তু জমাকৃত ডকুমেন্টস ত্রুটি পূর্ণ হওয়ায় তার মনোনয়ন পত্র নির্বাচন কমিশন কর্তৃক বাতিল ঘোষণা করা হয়।

নাথান বমের বর্তমান অবস্থান

স্থানীয় সূত্রে নাথান বম এর সঠিক অবস্থান জানা যায়নি। তিনি প্রায়ই স্থান পরিবর্তন করেন। প্রায়ই লন্ডনসহ ইউরোপিয়ান অনেক দেশ ভ্রমণে যান। এছাড়াও একাধিক বার রুমা / বিলাইছড়ি সীমান্তবর্তী কেএনএফ এর গোপন আস্তানায় অবস্থান করেছেন বলেও জানা যায়।

আরো জানা গেছে, বর্তমানে তার অবস্থান ভারতের মিজোরামে বলে জানা গেছে। জনশ্রুতি রয়েছে নাথান বম সুদানে দ্বৈত নাগরিকত্ব নিয়েছেন। তিনি জুম লেখক হিসেবে পরিচিতি ছিল।

এছাড়াও তিনি নিজেকে জৌ-জাতির লেখক/ প্রতিনিধি হিসেবে পরিচয় দিতে বেশী পছন্দ করেন। জানা গেছে জৌ-জাতিকে নিয়ে তিনি একাধিক বইও রচনা করেছেন। তার লেখা বমজৌ নামের বইটি অন্যতম প্রসিদ্ধ বই বলে জানা যায়।

নাথান বম বর্তমান সময়ের কুকিচিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট সংক্ষেপে কেএনএফ সবচেয়ে আলোচিত একজন বিচ্ছিন্নতাবাদী সন্ত্রাসী নেতা। সেই ভারতের মিজোরাম ও মিয়ানমারের বিভিন্ন বিচ্ছিন্নতাবাদী সশস্ত্র সন্ত্রাসী সংগঠন এর দলছুট সদস্য ও নেতাকর্মীদের দিয়ে কেএনএফ গঠন করে।

কেএনএফ সম্পর্কে জানা যায়, ফেসবুকে তারা একটি পেইজ খুলেন। সে পেইজ থেকে তারা দাবি করছেন রাঙামাটি ও বান্দরবান অঞ্চলের ছয়টি জাতিগোষ্ঠীর প্রতিনিধিত্ব করছে তারা। জাতিগুলো হলো- বম, পাংখোয়া, লুসাই, খিয়াং, ম্রো ও খুমি। তারা রাঙামাটির বাঘাইছড়ি, বরকল, জুরাছড়ি ও বিলাইছড়ি এবং বান্দরবানের রোয়াংছড়ি, রুমা, থানচি, লামা ও আলীকদম-এই উপজেলাগুলো নিয়ে আলাদা রাজ্যের দাবি করেছে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রচার করা একাধিক বিবৃতিতে এই সংগঠন জানায়, কুকি-চিন ন্যাশনাল আর্মি (কেএনএ) নামে একটি সশস্ত্র দল গঠন করেছে তারা। তাদের মূল সংগঠনের সভাপতি নাথান বম। তাদের দাবি পার্বত্য চট্টগ্রামে একসময় কুকি চিন রাজ্য ছিলো৷ চাকমরা তাদের সে রাজ্য দখল করে তাদের উচ্ছেদ করেছে। সে রাজ্য পুনরুদ্ধার এবং স্বাধীন কুকি চিন রাজ্যের জন্য সশস্ত্র সংগ্রাম শুরু করেছে বান্দরবান জেলার বেশ কয়েকটি উপজেলা ও রাঙ্গামাটি জেলার বিলাইছড়ি। তাদের আরো দাবি, তাদের সামরিক শাখার শতাধিক সদস্য গেরিলা প্রশিক্ষণের জন্য মিয়ানমারের কাচিন প্রদেশে পাড়ি জমান বছর তিনেক আগে।

২০২১ সালে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত একটি দল ফিরে আসে। চলতি বছর তারা আত্মগোপনে যায়। যদিও তারা বলে আসছেন তারা ২০০৮ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। কিন্তু সূত্র ও তাদের কার্যক্রম বিবেচনায় তাদের এই দাবির পক্ষে সত্যতা নেই। কারণ তৎকালীন তাদের সশস্ত্র শাখার কোন অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কেএনএফ সন্ত্রাসীদের সশস্ত্র ভিডিও প্রচার এবং কুকি-চিন রাজ্য গঠন করার দাবির পর সেনাবাহিনী তথা আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর নজরে আসে তারা। এর পর তাদের বিরুদ্ধে একটি জঙ্গি গোষ্ঠীকে আশ্রয়-প্রশয় দেওয়ার অভিযোগ উঠে।

নিরাপত্তাবাহিনীসহ বিভিন্ন আইন-শৃঙ্খলাবাহিনী কুকি চিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট (কেএনএফ) এর বিরুদ্ধে কম্বিং অপারেশনে নামে। অপারেশনে ৩ কেএনএফ সশস্ত্র সদস্য ও ৭ জঙ্গীসহ সর্বমোট ১০ জনকে আটক করতে সক্ষম হয় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী।

এসময় তাদের কাছ তাদের থেকে অস্ত্র গোলাবারুদ উদ্ধার করা হয়। অপারেশনের একপর্যায়ে কেএনএফ কোণঠাসা হয়ে যায়৷ বলা যায় তারা ছিন্ন-বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। তাদের অস্তিত্ব বিলিন হয়ে যায়। পালিয়ে যায় সংগঠনের সভাপতি নাথান বম।

জেএসএস সভাপতি সন্তু লারমা এবং বৈদেশিক কতিপয় দাতাসংস্থা, এনজিও, মিশনারিগুলো নাথান বম সৃষ্টির পেছনে ছিলো। তাদের মদদপুষ্টে এবং পৃষ্ঠপোষকতায় কেএনএফ গঠন হয়। মিয়ানমার ও ভারতের মিজোরাম এর বিভিন্ন বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনের দলছুট সশস্ত্র সদস্য ও নেতাকর্মীদের দিয়ে গঠন হয়।

এরপর বান্দরবান জেলার গহীন অরণ্যকে নিরাপদ আশ্রয়স্থল হিসেবে বেছে নেয়। সেনাবাহিনীসহ বিভিন্ন আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতায় অবশেষে বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনটি কোণঠাসা হয়ে ছিন্ন বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় এবং সংগঠনের সভাপতি নাথান বম পালিয়ে যায়। ভবিষ্যতে কেউ যদি কুকি চিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট এর মতো রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে দুঃসাহস প্রদর্শন করে নিরাপত্তা বাহিনী তাদেরও বিষদাঁত উপড়ে ফেলবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Let's check your brain 95 − = 88

একই ধরনের আরও সংবাদ
© All rights reserved 2022 CHT 360 degree