শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৬:৩৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
দালাল-বেঈমানের জন্মদাতা কুখ্যাত ইব্রাহিমকে পাহাড়ি জনগণ কখনই ক্ষমা করবে না! টেকনাফে আদালতের আদেশ অমান্য করে জমি দখলের চেষ্টা খাগড়াছড়িতে অটোরিকশা চালকের গলাকাটা লাশ উদ্ধার থানচি বাজার সড়কের বেহাল দশা, জনদুর্ভোগ চরমে ফিলিস্তিন সংকট:বেসামরিক নাগরিকদের গাজা ত্যাগের জন্য সময় নির্ধারণ করাই ইসরাইলের উদ্দেশ্য কুতুবদিয়ায় গলায় ফাঁস দিয়ে স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা ইসরায়েল থেকে রাষ্ট্রদূত প্রত্যাহার করলো তুরস্ক মাস্ক পরে অনুশীলনে বাংলাদেশ, দিল্লিতে ম্যাচ নিয়েও শঙ্কা গর্জনিয়ায় পানিতে ডুবে হেফজখানার ছাত্রের মৃত্যু পাকিস্তানের বিপক্ষে নিউজিল্যান্ডের রানের পাহাড়

তুমব্রু সীমান্ত রোহিঙ্গামুক্ত, শেষ ২৪২ জনকেও স্থানান্তর

ডেস্ক রিপোর্ট
  • প্রকাশিত: রবিবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩
  • ২৪ পঠিত

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম ইউনিয়নের তুমব্রু সীমান্তে অবস্থানরত শূন্যরেখার আরও ৬৭ পরিবারের ২৪২ রোহিঙ্গাকে সরিয়ে আনার কাজ সম্পন্ন হয়েছে।

রবিবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১০টা থেকে বিকাল পর্যন্ত ৮ম দফায় উপজেলার ঘুমধুম ইউনিয়নের তুমব্রু বাজার থেকে বাসে করে তাদের উখিয়ার কুতুপালং ট্রানজিট পয়েন্টে আনা হয়েছে। সেখানে পরীক্ষা–নিরীক্ষার পর রোহিঙ্গাদের উখিয়ার কুতুপালং আশ্রয়শিবিরে স্থানান্তর করা হয়।

গত এক মাসে আরও সাত দফায় ৪৬৩ পরিবারের দুই হাজার ২৮৫ রোহিঙ্গাকে উখিয়ায় হস্তান্তর করা হয়েছিল। এই এক মাসে সেখান থেকে মোট দুই হাজার ৫২৭ রোহিঙ্গাকে ক্যাম্পে আনা হয়েছে।

রবিবার রাতে এ তথ্য নিশ্চিত করে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার (আরআরআরসি) মোহাম্মদ মিজানুর রহমান বলেন, শূন্যরেখা থেকে তুমব্রুতে আশ্রিত সব রোহিঙ্গাকে উখিয়ায় সরিয়ে আনার কাজ শেষ হয়েছে। সর্বশেষ আজকে ৬৭ পরিবারের ২৪২ রোহিঙ্গাকে উখিয়ার কুতুপালং ট্রানজিট পয়েন্টে আনা হয়। সব মিলিয়ে ৫৩০ পরিবারের দুই হাজার ৫২৭ রোহিঙ্গাকে স্থানান্তর সম্পন্ন হয়েছে। তুমব্রুতে আর কোনও রোহিঙ্গা নেই।

আরআরআরসি কার্যালয় থেকে জানা গেছে, বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তের শূন্যরেখায় রোহিঙ্গাদের দুটি সশস্ত্র সংগঠনের সংঘর্ষে বসতবাড়ি পুড়ে যাওয়া রোহিঙ্গাদের গত ৫ ফেব্রুয়ারি রবিবার সকালে প্রথম দফায় ১৮০ রোহিঙ্গাকে তুমব্রু থেকে নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম ইউনিয়ন পরিষদে আনার পরে টোকেনের মাধ্যমে পরিচয়পত্র দিয়ে বাসে করে উখিয়ার কুতুপালংয়ে জাতিসংঘ শরণার্থী সংস্থার (ইউএনএইচসিআর) ট্রানজিট পয়েন্টে নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর একই প্রক্রিয়ায় দফায় দফায় ৫৩০ পরিবারের দুই হাজার ৫২৭ রোহিঙ্গাকে হস্তান্তর করা হয়। এরপর কার্যক্রম শেষে তাদের উখিয়া-টেকনাফের বিভিন্ন ক্যাম্পে পাঠানো হবে।

সীমান্ত বসবাসকারীদের মতে, ২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর থেকে রোহিঙ্গারা যখন দলে দলে মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে ঢুকছিল, তখন কিছু রোহিঙ্গা আটকা পড়েন মিয়ানমার এবং বাংলাদেশের মাঝামাঝি ঘুমধুম ইউনিয়নের তুমব্রু সীমান্তের শূন্যরেখায়। পাঁচ শতাধিকের বেশি রোহিঙ্গা এতদিন সেখানেই বসবাস করছিল। যেখানে সর্বসাধারণের প্রবেশ নিষেধ। কিন্তু গত ১৮ জানুয়ারি রোহিঙ্গা সলিডারিটি অর্গানাইজেশন (আরএসও) ও আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মির (আরসা) মধ্যকার সংঘর্ষে একজন নিহত হন, ক্যাম্পে আগুনে পুড়ে বসতবাড়ি হারিয়ে তুমব্রু গ্রামে প্রায় তিন হাজার রোহিঙ্গা আশ্রয় নেন। এরপর পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনে বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধিদের নিয়ে গত ২৮ জানুয়ারি একটি কমিটি ওই রোহিঙ্গাদের তথ্য সংগ্রহ ও যাচাই-বাছাই প্রক্রিয়া শেষে তাদের হস্তান্তর কার্যক্রম শুরু হয়েছে। প্রায় এক মাসে তুমব্রু থেকে সব রোহিঙ্গাকে হস্তান্তর কাজ শেষ হয়েছে।

তুমব্রু সীমান্তের স্থানীয় বাসিন্দা মোহাম্মদ শাহাজান মিয়া বলেন, অবশেষে আমার এলাকা আপাতত রোহিঙ্গামুক্ত হয়েছে। এতে সীমান্তের মানুষ স্বস্তিবোধ করছেন। কারণ, প্রায় ছয় বছর ধরে শূন্যরেখায় অবস্থান করা রোহিঙ্গাদের জন্য সীমান্তের মানুষ অনিরাপদ ছিলেন। পাশাপাশি তাদের অপরাধের কারণে এখানকার লোকজন বিভিন্ন সমস্যার মুখোমুখি হয়েছিলেন। এখন আর গোলাগুলির শব্দ পাওয়া যাবে না। অন্তত শান্তিতে ঘুমানো যাবে।

ঘুমধুম পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক (ইনচার্জ) সোহাগ রানা জানান, শূন্যরেখার আশ্রয়শিবিরে অগ্নিকাণ্ড ও দুটি সশস্ত্র গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষের আগে (১৭ জানুয়ারি) সেখানে (শূন্যরেখার আশ্রয়শিবিরে) রোহিঙ্গা ছিল ৪ হাজার ৩০০ জনের মতো। তুমব্রু এলাকায় অবস্থান নিয়েছিল তিন হাজারের মতো। অবশিষ্ট এক হাজারের মতো রোহিঙ্গা মিয়ানমারে চলে গিয়েছিল। তাদের কেউ কেউ তুমব্রুতে ফিরে এসেছেন। সবাইকে আজ রোববার উখিয়ায় স্থানান্তর করা হয়েছে। তুমব্রুতে এখন কোনো রোহিঙ্গা নেই। নতুন করে কোনো রোহিঙ্গাকে সেখানে (তুমব্রুতে) থাকতে দেওয়া হবে না। শূন্যরেখার কোনো রোহিঙ্গা নাইক্ষ্যংছড়ির কোথাও আশ্রয় নিলে তাঁদের ধরে আইনের আওতায় আনা হবে।

এ বিষয়ে ঘুমধুম ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. জাহাঙ্গীর আজিজ জানান, শূন্যরেখার রোহিঙ্গাদের তুমব্রু থেকে সরিয়ে নেওয়ার কাজ শেষ হয়েছে। সেখানে আর কোনও রোহিঙ্গা নেই। এখন সীমান্ত এলাকায় বিভিন্ন অপরাধ কর্মকাণ্ড কমে আসবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Let's check your brain 50 − 40 =

একই ধরনের আরও সংবাদ
© All rights reserved 2022 CHT 360 degree