বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৬:২১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
দালাল-বেঈমানের জন্মদাতা কুখ্যাত ইব্রাহিমকে পাহাড়ি জনগণ কখনই ক্ষমা করবে না! টেকনাফে আদালতের আদেশ অমান্য করে জমি দখলের চেষ্টা খাগড়াছড়িতে অটোরিকশা চালকের গলাকাটা লাশ উদ্ধার থানচি বাজার সড়কের বেহাল দশা, জনদুর্ভোগ চরমে ফিলিস্তিন সংকট:বেসামরিক নাগরিকদের গাজা ত্যাগের জন্য সময় নির্ধারণ করাই ইসরাইলের উদ্দেশ্য কুতুবদিয়ায় গলায় ফাঁস দিয়ে স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা ইসরায়েল থেকে রাষ্ট্রদূত প্রত্যাহার করলো তুরস্ক মাস্ক পরে অনুশীলনে বাংলাদেশ, দিল্লিতে ম্যাচ নিয়েও শঙ্কা গর্জনিয়ায় পানিতে ডুবে হেফজখানার ছাত্রের মৃত্যু পাকিস্তানের বিপক্ষে নিউজিল্যান্ডের রানের পাহাড়

নাইক্ষ্যংছড়িতে অবৈধভাবে কাটা হচ্ছে কোটি টাকার সবুজ বাঁশ

রিপোর্টারঃ
  • প্রকাশিত: শনিবার, ১৩ আগস্ট, ২০২২
  • ৩৩ পঠিত

বাঁশের প্রজনন বৃদ্ধির জন্যে জুন-আগস্ট ৩ মাস বাঁশ কাটা ও পরিবহনে নিষেধাজ্ঞা থাকলে ও নাইক্ষ্যংছড়িতে বাঁশ দস্যুরা তা মোটেও
মানছে না এ নির্দেশনা । উপজেলার পাহাড়ি অঞ্চলের বাঁশ বাগান গুলোতে শতশত লেবার লাগিয়ে এসব বাঁশ দস্যু লাখ লাখ টাকার বিপরীতে বনবিভাগ ও অপরাপর আইনি কর্তাদের ম্যানেজ করে সব করছেন।

তারা (বনকর্তারা) বাঁশের ভুয়া কাগজ সৃজন করে দিয়ে নগদ টাকা গুনছেন সংশ্লিষ্টরা। পক্ষান্তরে বাঁশ কাঠুরিয়ারা এ কাগজ-পত্র বগলে নিয়ে সবার চোখে ধুলা দিয়ে পাচার করছে হাজার হাজার মা বাঁশ। ফলে সবুজে ঘেরা বাঁশবনে কালো হাতের থাবায় বিনাশ হচ্ছে চারা বাঁশ সহ মা বাঁশও। দেশের চরম ক্ষতির পাশাপাশি মানা হচ্ছে না সরকারের নির্দেশনাও।

সূত্র আরো জানান, নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার রেঞ্জ অফিস রয়েছে দু’টি। একটি নাইক্ষ্যংছড়ি অপরটি বাইশারীতে অবস্থিত সাঙ্গু রেঞ্জ। এ দু’টি রেঞ্জের আওতাধীন ১৭ মৌজাতে বাঁশ বন রয়েছে দেশের অন্যান্য এলাকার চাইতে বেশি। এ কারণে তথ্য রয়েছে বান্দরবান ও ককবাজার জেলার সবচেয়ে বাঁশ উৎপাদন হয় এ নাইক্ষ্যংছড়িতেই । আর এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে ২০ থেকে ২৫ জন বনজসম্পদ পাচারের গড় ফাদার কয়েক শত বাঁশ কাঠুরিয়াকে অগ্রিম টাকা দিয়ে বনে ঢুকিয়ে এ সব করছে।

আর পাচার করছে ঈদগড় খাল, গর্জনিয়া খাল, বাঁকখালী নদী দিয়ে। এ দু’পয়েন্টের হাট বসানো হয় ঈদগড় খালের বৌ ঘাটা, ঈদগড় বাজার ও বাঁকখালীর ছাগল খাইয় বিজিবি ক্যাম্পের পাশে বাঁকখালী নদীতে।

আর অপর ৩টি গ্রুপ বাইশারী ইউনিয়ন ঘেষে নিচে আসা খুটাখালী ছড়া, ফারিখাল ও রেজুর ছড়া দিয়েও বাঁশ পাচার করছে । তারা নদী পথ ছাড়া সড়ক পথেও পাচার করছে লাখো মা বাঁশ। এ হিসেবে জুন, জুলাই ও আগস্ট মাসে বন্ধের এ ৩ মাসে এই পযর্ন্ত সবখাল, নদী ও সড়ক পথ দিয়ে অন্তত ২০ লাখ মা বাঁশ নাইক্ষ্যংছড়ি থেকে পাচার হয়ে গেছে। বন্ধের ৯০ দিনে বাকি আছে মাত্র ১৬ দিন। এ সময়ে আরো ৮ লাখ মা বাঁশ তারা পাচার করার পরিকল্পনা নিয়ে এগোচ্ছে। এ ২৮ লাখ মা বাঁশের আনুমানিক মূল্য অন্তত ২ কোটি টাকা।

প্রত্যক্ষদর্শী মো. ইউনুছ, হাবিবুর রহমান,আবদুর রহিম, আবু ইউছুপ ও আবদুর রহমান বলেন, বন্ধর সময় বাকঁখালীতে বাঁশের হাট বসে ১৫ দিন অন্তর। ঈদগড় ও অন্যান্য হাটে বসে সপ্তাহে ১ দিন। ঈদগড়ের হাট শুক্রবার ও সোমবারে।

তাদের অভিযোগ, বাঁশ পাচারের গড়ফাদাররা বাঁকখালী নদী, রেজু আমতলী খাল, ঈদগড় খাল, খুটাখালী ছড়া ও গর্জনিয়া খাল দিয়ে বাঁশ কেটে অন্য উপজেলায় পাচার করছে ভিন্ন ভিন্ন পথ দিয়ে।

এ কারণে লাভের আশায় যেমন,বাকখালী রেঞ্জ,ঈদগড় রেঞ্জ,ভোমরিয়া ঘোনা রেঞ্জ,রাজার কূল রেঞ্জ ও উখিয়া রেঞ্জ। এসব রেঞ্জ কর্মকর্তারা কক্সবাজারের হলেও তাদের ঘাট দিয়েই এ সব মা বাঁশ দেশের নানা স্থানে পাচার হচ্ছে। আর এ পাচার কাজে ভাগ বসিয়ে তারা বাঁশ পাচারে সহায়তা করে।

তবে এসব কর্মকর্তাদের দাবি, তারা বাঁশ কাটার বন্ধের সময় বৈধ কাগজপত্র নিয়ে এ সব বাঁশ কাটা হয় এব্ং পরিবহণকালে এড়িয়ে যান।

অভিযুক্ত বাঁশ ব্যবসায়ী এ আল আমিন বলেন, ‘তারা বন্ধের আগের কয়েক লাখ টাকা খরচ করে বৈধ কাগজপত্র নিয়ে নিয়েছেন স্থানীয় বনবিভাগ থেকে। সুতারাং তারা বৈধ। তাদেরকে কেউ আটকাতে পারবে না।’

বনবিভগের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘কোন কাগজ নেই এ ৩ মাসে। আগেও নেই, চলাকালেও নেই। জুন, জুলাই ও আগস্টের পরে আছে। কেউ কাটলে বা পরিবহন করলে সে অপরাধী।’

স্থানীয়রা ও বলেন, ‘এসবে ভুয়া কাগজপত্র দেন বন বিভাগের কর্মকর্তারা আর বাঁশ ব্যবসায়ীরা জানান, তারা একাধিকবার চুক্তিমত লাখ টাকার দাখিলা কেটে রেখেছেন। সুতারাং এ কাগজ বৈধ আর সুতরাং বাঁশও বৈধ।’

এ বিষয়ে জানতে নাইক্ষ্যংছড়ি রেঞ্জ কর্মকতা মন্জুর আলম জানান, তিনি স্টেশনে নেই। রেঞ্জে লোকবল সংকটও আছে। তাই সব সময় এসব বাঁশ জব্দ করতে পরেন না তিনি।

বান্দরবানের লামা বিভাগীয় বন কর্মকর্তা বেলাল উদ্দিন বলেন, ‘নিষিদ্ধ মৌসুমে বাঁশ কাটা ও পরিবহণে বারণ আছে। তবুও কেন বাঁশ পাচার হচ্ছে তা দেখে তিনি ব্যবস্থা নেবেন।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Let's check your brain 8 + 2 =

একই ধরনের আরও সংবাদ
© All rights reserved 2022 CHT 360 degree