শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৭:৪২ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
দালাল-বেঈমানের জন্মদাতা কুখ্যাত ইব্রাহিমকে পাহাড়ি জনগণ কখনই ক্ষমা করবে না! টেকনাফে আদালতের আদেশ অমান্য করে জমি দখলের চেষ্টা খাগড়াছড়িতে অটোরিকশা চালকের গলাকাটা লাশ উদ্ধার থানচি বাজার সড়কের বেহাল দশা, জনদুর্ভোগ চরমে ফিলিস্তিন সংকট:বেসামরিক নাগরিকদের গাজা ত্যাগের জন্য সময় নির্ধারণ করাই ইসরাইলের উদ্দেশ্য কুতুবদিয়ায় গলায় ফাঁস দিয়ে স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা ইসরায়েল থেকে রাষ্ট্রদূত প্রত্যাহার করলো তুরস্ক মাস্ক পরে অনুশীলনে বাংলাদেশ, দিল্লিতে ম্যাচ নিয়েও শঙ্কা গর্জনিয়ায় পানিতে ডুবে হেফজখানার ছাত্রের মৃত্যু পাকিস্তানের বিপক্ষে নিউজিল্যান্ডের রানের পাহাড়

নাফ নদীতে বিজিবি-বিজিপি যৌথ টহল

ডেস্ক রিপোর্ট
  • প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ২৪ জানুয়ারী, ২০২৩
  • ৪৯ পঠিত

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ও মিয়ানমারের বর্ডার গার্ড পুলিশ (বিজিপি) এর মধ্যে ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক পর্যায়ে নাফ নদীতে যৌথ টহল পরিচালনা করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ৯টায় সীমান্ত সুরক্ষিত রাখার লক্ষ্যে এই সমন্বিত টহল পরিচালনা করা হয়।

টেকনাফ ব্যাটালিয়ন (২ বিজিবি) অধিনায়ক লে. কর্নেল শেখ খালিদ মোহাম্মদ ইফতেখার জানান, সীমান্ত ব্যবস্থাপনার সকল প্রকার প্রটোকল মেনে সীমান্তের শূন্য লাইনে নাফ নদীতে বিজিবি-বিজিপি পর্যায়ে যৌথ টহল পরিচালনা করা হয়। তার নেতৃত্বে উক্ত যৌথ টহলে ১২ সদস্য এবং বিজিপি’র পক্ষে ১২ সদস্য অংশ নেয়। বিজিপির পক্ষে নেতৃত্ব দেন ১নং বর্ডার গার্ড পুলিশ ব্রাঞ্চের অধিনায়ক লে. কর্নেল ইয়ে ওয়াই শো।

যৌথ টহল সকাল সাড়ে নয়টায় শুরু হয়ে দুপুর পৌনে একটা পর্যন্ত চলে। যা অত্যন্ত শান্তি ও সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশে সমাপ্তি হয়।

উল্লেখ্য, গত ২৫ মার্চ থেকে প্রায় ৩ বছর বিশ্বজুড়ে কোভিড-১৯ এর প্রাদুর্ভাব বৃদ্ধি পাওয়ায় এবং ২০২২ সালের জুলাই মাস থেকে মায়ানমার সীমান্তে উদ্ভূত পরিস্থিতির কারণে উভয় দেশের মধ্যে যৌথ টহল বন্ধ ছিল, যা সীমান্ত ব্যবস্থাপনায় বিরূপ প্রভাব ফেলছিল। এরই প্রেক্ষিতে উভয় দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর ঐকান্তিক ও কূটনৈতিক প্রচেষ্টায় এবং গত বছরের ৩০ অক্টোবর বিজিবি-বিজিপি ব্যাটালিয়ন কমান্ডার পর্যায়ে পতাকা বৈঠকে উভয় দেশের সম্মতিতে সীমান্তে সার্বক্ষণিক নজরদারির লক্ষ্যে এই যৌথ টহল শুরু করার পরিকল্পনা করা হয়। যার প্রেক্ষিতে ২৪ জানুয়ারি উভয় দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তে যৌথ টহল পরিচালনার কার্যক্রম শুরু করে। যৌথ টহল পরিচালনার ফলে নাফ নদীতে যে সকল দ্বীপ বাংলাদেশ-মিয়ানমার আন্তর্জাতিক সীমারেখা বরাবর অবস্থিত এবং যে সকল দ্বীপসমূহ চোরাকারবারী অথবা দুস্কৃতিকারী দলের অভয়াশ্রম হিসেবে ব্যবহার হতো। উভয় দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী সমূহের উপস্থিতিতে সে সকল দ্বীপসমূহে স্ব স্ব সীমান্তরক্ষী বাহিনীর পরিপূর্ণ নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠিত হবে।

ভবিষ্যতেও দুটি বন্ধু প্রতীম রাষ্ট্রের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর যৌথ টহল কার্যক্রম চলমান থাকবে। উভয় দেশের সীমান্ত ৎরক্ষী বাহিনী এই যৌথ টহল কার্যক্রম চলমান রাখার মাধ্যমে নিজস্ব সীমান্ত সুরক্ষিত রাখতে পারবে বলে দৃঢ় আশাবাদ ব্যক্ত করেছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Let's check your brain − 1 = 1

একই ধরনের আরও সংবাদ
© All rights reserved 2022 CHT 360 degree