বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১:০৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
দালাল-বেঈমানের জন্মদাতা কুখ্যাত ইব্রাহিমকে পাহাড়ি জনগণ কখনই ক্ষমা করবে না! টেকনাফে আদালতের আদেশ অমান্য করে জমি দখলের চেষ্টা খাগড়াছড়িতে অটোরিকশা চালকের গলাকাটা লাশ উদ্ধার থানচি বাজার সড়কের বেহাল দশা, জনদুর্ভোগ চরমে ফিলিস্তিন সংকট:বেসামরিক নাগরিকদের গাজা ত্যাগের জন্য সময় নির্ধারণ করাই ইসরাইলের উদ্দেশ্য কুতুবদিয়ায় গলায় ফাঁস দিয়ে স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা ইসরায়েল থেকে রাষ্ট্রদূত প্রত্যাহার করলো তুরস্ক মাস্ক পরে অনুশীলনে বাংলাদেশ, দিল্লিতে ম্যাচ নিয়েও শঙ্কা গর্জনিয়ায় পানিতে ডুবে হেফজখানার ছাত্রের মৃত্যু পাকিস্তানের বিপক্ষে নিউজিল্যান্ডের রানের পাহাড়

বিজয়ের চেতনায় পতাকা হাতে ফেরিওয়ালা, ছুটে চলেছে গ্রাম থেকে শহরে

ডেস্ক রিপোর্ট
  • প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০২২
  • ৬ পঠিত

বিজয়ের মাস ডিসেম্বর এলেই বাঙালির মনেপ্রাণে জেগে ওঠে দেশাত্মবোধ। প্রতি বছর বিজয় দিবস বাঙালির জাতীয় জীবনের একটি গুরুত্বপূর্ণ দিন । লাল-সবুজের ভালবাসায় বর্ণিল হয়ে ওঠে সবকিছু। আর এই দিনটি ঘিরে জাতীয় পতাকা হয়ে ওঠে ঐক্যের প্রতীক, আবেগের বহিঃপ্রকাশ। এ যেন আত্মার টান। চারদিকে লাল-সবুজের ফেরিওয়ালাদের পথচলায় উড়ছে বিজয়ের নিশান, যেন ভিন্ন এক পরিবেশ। শুধু জাতীয় পতাকা নয়, পোশাক পরিচ্ছদেও দেখা যায় লাল-সবুজের ছোঁয়া। আমাদের স্বাধীনতার প্রতীক লাল-সবুজে উদ্বেলিত হয়ে পড়ে পুরো জাতি। লাল-সবুজের এ পতাকা আমাদের শেখায় দেশও জনগণের পক্ষে কথা বলা, বিশ্ববাসীর কাছে আমাদের পরিচিত করে স্বাধীন সার্বভৌম অকুতোভয় জাতি হিসেবে, সাহস যোগায় মাথা উঁচু করে দাঁড়াবার।

স্থানীয়রা বলেছেন, বিজয়ের মাসে অনেকেই বাড়ির ছাদে, শিল্প-প্রতিষ্ঠানের সামনে এমনকি গাড়িতেও জাতীয় পতাকা ওড়ান। এর ফলে বিজয়ের মাস এলেই জাতীয় পতাকার চাহিদা বেড়ে যায়। আর এই সুযোগে মৌসুমী ব্যবসায়ীরা হাট-বাজারে ঘুরে ঘুরে জাতীয় পতাকা বিক্রি করছেন। শুধু পতাকা নয়, হাতে ও মাথায় বাঁধার মতো লাল-সবুজ ব্যাচও বিক্রি করছে। আর ১৬ ডিসেম্বরে লাল-সবুজ পতাকা হাতে দেখা মেলে অসংখ্য শিশু-কিশোরদের।

এদিকে, মহান বিজয় দিবস ঘিরে ফেরিওয়ালাদের জাতীয় পতাকা বিক্রির পালা শুরু হয় ডিসেম্বরের প্রথম দিন থেকেই। কাঁধে একটি বাঁশ নিয়ে তাতে মাথা থেকে গোড়া পর্যন্ত ছোট-বড়, মাঝারি আকারের দেশের লাল-সবুজের পতাকা সাজিয়ে বিক্রি করেন ফেরিওয়ালারা। বিজয় দিবসকে সামনে রেখে পুরো পৌরশহর ও প্রতিটি গ্রামে-গঞ্জে পতাকা বিক্রেতাদের পদচারণা বেড়েছে। লাল-সবুজের পতাকা নিয়ে পৌরশহর একপ্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তে হাঁটছে ওরা। এসব ফেরিওয়ালাদের কাঁধে আমাদের জাতীয় পতাকার সারি দেখলে মনে হয় লাল-সবুজের ভালোবাসা পুরো নাগরিক জীবনকে ওরা ছুঁয়ে দিয়েছে। শিশু থেকে শুরু করে নানা শ্রেণীর মানুষ লাল-সবুজের অন্তত ছোট্ট একটি পতাকা কিনে জানান দিচ্ছে দেশপ্রেমের কথা। লাল-সবুজের পতাকা কাঁধে নিয়ে তারা কেবল জীবিকার পথই বেছে নেননি, এ পেশার মধ্য দিয়ে প্রকাশ পেয়েছে দেশপ্রেম, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও স্মৃতি।

অপরদিকে, বিজয় দিবসকে সামনে রেখে সারাদেশে মতো কক্সবাজারের চকরিয়া পৌরশহর ও ১৮ ইউনিয়নে গ্রামীণ জনপদ, হাট-বাজার জাতীয় পতাকা ফেরিওয়ালাদের পথচারণায় মুখরিত হয়ে উঠেছে। অন্যান্য বছরের তুলনায় এবারে বিজয় দিবসকে ঘিরে উপজেলার ১৮ ইউনিয়ন ও চকরিয়া পৌরসভার নানা অলিগলিতে পতাকা বিক্রির ফেরিওয়ালার সংখ্যা দ্বিগুণ দেখা মেলেছে। দিবসের শেষ সময়ে বিক্রিও হচ্ছে প্রচুর।

এক মৌসুমী পতাকা বিক্রেতা মো. খাইরুজ্জামান (১৮) নামের এক যুবকের সঙ্গে চকরিয়া কোরক বিদ্যাপীঠ স্কুলের সামনে কথা হয়। । সে মাদারীপুর জেলার শিবচর উপজেলার বহরাতলা গ্রামের বাসিন্দা এমরান হোসেনের ছেলে। সে এইচএসসি প্রথম বর্ষের ছাত্র। পড়া-লেখার পাশাপাশি সারা বছর সংসারে অন্যান্য কাজ করলেও গত ৯ ডিসেম্বর থেকে পতাকা বিক্রি করার জন্য এখানে এসেছেন। এ মাসের ১৫ তারিখ পর্যন্ত তিনি পতাকা বিক্রি করবেন।

মো. খাইরুজ্জামান বলেন, ডিসেম্বর মাসের এ সময়টাতে পতাকা, মাথায় ও হাতে বাধার ব্যাচ এবং বিজয় দিবসের অন্যান্য সামগ্রী ভালই বিক্রি হতো। এতে ১৫ দিনে পতাকা বিক্রি করে অন্তত ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা আয় করা যেতো। কিন্তু এবার বিশ্বকাপের খেলা চলার কারণে মানুষের মাঝে পতাকা কেনার প্রতি তেমন আগ্রহ দেখছি না। তাই এবার অন্য বছরের তুলনায় বিক্রিও কম। তারপরও দিনে ৭শ থেকে ৮শ টাকা বিক্রি হয়।

চকরিয়া পৌরশহরের পুরাতন বাস স্টেশন এলাকায় মাদারীপুর থেকে আসা পকাকা বিক্রেতা মুছা আলী বলেন, ‌‘জাতীয় পতাকা বিক্রি করে আমি গর্বিত। আমি মনে করি, পতাকার মাধ্যমে আমি দেশের মানুষের কাছে শহীদ মুক্তিযুদ্ধাদের স্মৃতি তুলে দিচ্ছি। জাতীয় পতাকা দেখলেই মনে হয় মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতি বিজড়িত কথা। এ পতাকার জন্য বাংলাদেশের লাখ লাখ মানুষ জীবন দিয়েছেন।’

তিনি আরো বলেন, ‘প্রতি বছর বিভিন্ন জাতীয় দিবসে এ পতাকা ফেরি হিসেবে বিক্রি করতে বের হন। আমরা প্রায় ১৫-২০ জন লোক বিভিন্ন জেলা থেকে এ উপজেলা ও পৌরশহর এলাকায় এসেছি। দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় আমরা ছুটে চলেছি জাতীয় পতাকা হাতে নিয়ে। জাতীয় পতাকা বিক্রি করতে নিজেকে অনেক গর্ববোধ করি।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Let's check your brain 34 − = 33

একই ধরনের আরও সংবাদ
© All rights reserved 2022 CHT 360 degree