বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০১:৫১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
দালাল-বেঈমানের জন্মদাতা কুখ্যাত ইব্রাহিমকে পাহাড়ি জনগণ কখনই ক্ষমা করবে না! টেকনাফে আদালতের আদেশ অমান্য করে জমি দখলের চেষ্টা খাগড়াছড়িতে অটোরিকশা চালকের গলাকাটা লাশ উদ্ধার থানচি বাজার সড়কের বেহাল দশা, জনদুর্ভোগ চরমে ফিলিস্তিন সংকট:বেসামরিক নাগরিকদের গাজা ত্যাগের জন্য সময় নির্ধারণ করাই ইসরাইলের উদ্দেশ্য কুতুবদিয়ায় গলায় ফাঁস দিয়ে স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা ইসরায়েল থেকে রাষ্ট্রদূত প্রত্যাহার করলো তুরস্ক মাস্ক পরে অনুশীলনে বাংলাদেশ, দিল্লিতে ম্যাচ নিয়েও শঙ্কা গর্জনিয়ায় পানিতে ডুবে হেফজখানার ছাত্রের মৃত্যু পাকিস্তানের বিপক্ষে নিউজিল্যান্ডের রানের পাহাড়

‘রোহিঙ্গা কর্মসূচি কার্যকর করতে লোকালাইজেশন রোডম্যাপ বাস্তবায়ন চাই’

ডেস্ক রিপোর্ট
  • প্রকাশিত: বুধবার, ২৪ আগস্ট, ২০২২
  • ৪৭ পঠিত

রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফিরিয়ে নেওয়ার ব্যাপারে মিয়ানমারের উপর কার্যকর চাপ প্রয়োগে জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় পুরোপুরি ব্যর্থ বলে অভিমত ব্যক্ত করেছেন নাগরিক সমাজের নেতৃবৃন্দ।

তারা বলেন, রোহিঙ্গা সংকটের দায় পুরোটাই মিয়ানমারের, এটি একটি আন্তর্জাতিক সংকট, অথচ কোনও রকম দায় না থাকার পরেও এই সংকটের দায়ভার বহন করতে হচ্ছে বাংলাদেশকে। এর দায়ভার বিশ্ববাসীকে নিতে হবে।

রোহিঙ্গা আগমনের পাঁচ বছর পূর্তিতে বুধবার (২৪ আগস্ট) দুপুরে কক্সবাজার সিএসও-এনজিও ফোরাম (সিসিএনএফ)-এর আলোচনা সভায় তাঁরা এসব কথা বলেন।

কক্সবাজারে কর্মরত প্রায় ৫০টি স্থানীয় ও জাতীয় সংস্থার নেটওয়ার্ক সিসিএনএফ আয়োজিত সভাটি সঞ্চালনা করেন ফোরামের কো-চেয়ার ও কোস্ট ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক রেজাউল করিম চৌধুরী এবং আরেকজন কো-চেয়ার ও পালসের প্রধান নির্বাহী আবু মোর্শেদ চৌধুরী।

এতে আরও বক্তৃতা করেন নারী পক্ষের শিরীন হক, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর পিস এন্ড জাস্টিস’র ব্যারিস্টার মানজুর হাসান, ডিজাস্টার ফোরামের নঈম গওহর ওয়াহরা, ইপসা’র মো. আরিফুর রহমান, জাগো নারী উন্নয়ন সংস্থার শিউলি শর্মা, সুশীলনের মো. মজিুবর রহমান, একলাবের সঙ্গীতা ঘোষ এবং সিসিএনএফ’র কো-চেয়ার এবং মুক্তি কক্সবাজার’র প্রধান নির্বাহী বিমল চন্দ্র দে সরকার ও নেটওয়ার্কটির সদস্য সচিব মো. জাহাঙ্গীর আলম।

আবু মুর্শেদ চৌধুরী বলেন, ‌‘দেশে রোহিঙ্গার সংখ্যা এখন প্রায় ১২ লাখ বলে জানা যাচ্ছে। এখন পর্যন্ত জাতিসংঘের কয়েকটি রেজুলেশন ছাড়া এদেরকে মিয়ানমারে ফিরিয়ে নেওয়ার কার্যকর কোনও উদ্যোগ নেই। এতে করে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর মধ্যে অনিশ্চয়তা ও হতাশা কাজ করছে। একই ধরনের হতাশা আছে স্থানীয়দের মধ্যেও। প্রত্যাবাসন নিশ্চিত করতে প্রথাগত কূটনীতির পাশাপাশি অনানুষ্ঠানিক কূটনীতি বা ট্র্যাক টু ডিপ্লোম্যাসির প্রতি জোর দিতে হবে। শিউলী শর্মা রোহিঙ্গা শিবিরে নারী নেতৃত্ব তৈরির উপর জোর দেন।’

বিমল চন্দ্র দে সরকার বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের প্রায় ৫০ ভাগই শিশু-যুব সমাজ। এই বিশাল জনগোষ্ঠীকে ক্যাম্পের ভিতর বিভিন্ন কার্যক্রমে ব্যস্ত রাখতে হবে, কারিগরি ও জীবন দক্ষতা বিষয়ক প্রশিক্ষণ দিতে হবে। এতে করে তাঁদের বিপথে যাওয়ার সম্ভাবনা কমবে এবং তাঁরা মিয়ানমারে ফিরে গেলেও সম্মানজনক কর্মসংস্থান তৈরি করতে পারবে।’

মো. মুজিবুর রহমান বলেন, ‘শিবির তৈরি করতে গিয়ে প্রায় ৬ হাজার একর পাহাড় এবং ২ হাজার একর বনভূমি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সামাজিক বনায়নে সম্পৃক্ত প্রায় আড়াই হাজার পরিবার পাঁচ বছরেও কোনও ক্ষতিপূরণ পায়নি। পানির স্তর নিচে নেমে যাচ্ছে। প্লাস্টিক একটা বড় সংকট, সকল প্লাস্টিক শিবিরে নিষিদ্ধ করতে হবে। পরিবেশ পুনরুদ্ধারে একটি বিশেষ তহবিল তৈরি করতে হবে।

সঙ্গীতা ঘোষ বলেন, ‘কিশোর-কিশোরীদের প্রজনন স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে হবে।

মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘রোহিঙ্গা কর্মসূচির পরিকল্পনা ও তা বাস্তবায়নে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলোকে সম্পৃক্ত করতে হবে। স্থানীয় প্রতিষ্ঠানগুলোকে মাঠ পর্যায়ে কার্যক্রম বাস্তবায়নে নেতৃত্ব দিতে হবে, এতে করে খরচ কমিয়ে আনা যাবে। বর্তমানে রোহিঙ্গা কর্মসূচিতে স্থানীয় সংস্থাগুলোর অংশগ্রহণ অপ্রতুল।’

মো. আরিফুর রহমান বলেন, ‘রোহিঙ্গা শিবিরে গোয়েন্দা তৎপরতা বাড়াতে হবে, যাতে করে কোনও গোষ্ঠী ধর্মীয় মৌলবাদী দল তৈরি করতে না পারে। ক্যাম্পে মৌলবাদী দল তৈরি হলে তা দেশের জন্য হুমকির কারণ হয়ে দাঁড়াবে।

গওহর নঈম ওয়াহরা বলেন,‘ প্রত্যাবাসনকেই রাখতে হবে রোহিঙ্গা কর্মসূচির কেন্দ্রবিন্দুতে। প্রত্যাবাসনের জন্য একটি জাতীয় কৌশলপত্র তৈরি করতে হবে এবং নিয়মিতভাবে সেই পরিকল্পনার বাস্তবায়ন অগ্রগতি যাচাই করে দেখতে হবে। এছাড়াও বাংলাদেশ ও মিয়ানমারসহ সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর নাগরিক সমাজগুলোর মধ্যে যোগাযোগ বাড়াতে হবে।’

ব্যারিস্টার মানজুর হাসান বলেন, ‘প্রত্যাবাসনের ব্যাপারে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়, বিশেষ করে জাতিসংঘের বড় ব্যর্থতা আছে। এক্ষেত্রে ব্যর্থ আসিয়ানও। রোহিঙ্গা সংকট একটি দীর্ঘায়িত সংকটে পরিণত হয়ে গেছে। তাই আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক উদ্যোগ প্রয়োজন। সংকট মোকাবেলায় অর্থ সহায়তা কমছে, এটা মোকাবেলায় লোকালাইজেশন রোডম্যাপ বাস্তবায়নের কোনও বিকল্প নাই।

শিরীন হক বলেন, ‘প্রত্যাবাসনের আগ পর্যন্ত রোহিঙ্গা শিবিরের নারীদের জন্য বিশেষ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করতে হবে। শিবিরে বৃক্ষরোপন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করতে হবে।’

রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, ‘কক্সবাজারের জন্য সরকারের ব্যাপক উন্নয়ন কার্যক্রম বাস্তবায়িত হচ্ছে। প্রায় ৩.৩ বিলিয়ন ডলারের ৭০টির মতো প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে। দেশের এই সম্পদ রক্ষায়, কক্সবাজারের উন্নতির প্রচেষ্টাকে সকল ধরনের হুমকি থেকে মুক্ত রাখতে হবে। টেকসই প্রত্যাবাসন নিশ্চিত করতে না পারলে কক্সবাজারের জন্য, দেশের জন্য বিরাট হুমকি হয়ে দাঁড়াতে পারে এই রোহিঙ্গা সংকট।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Let's check your brain 80 + = 89

একই ধরনের আরও সংবাদ
© All rights reserved 2022 CHT 360 degree