রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০২:১০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
দালাল-বেঈমানের জন্মদাতা কুখ্যাত ইব্রাহিমকে পাহাড়ি জনগণ কখনই ক্ষমা করবে না! টেকনাফে আদালতের আদেশ অমান্য করে জমি দখলের চেষ্টা খাগড়াছড়িতে অটোরিকশা চালকের গলাকাটা লাশ উদ্ধার থানচি বাজার সড়কের বেহাল দশা, জনদুর্ভোগ চরমে ফিলিস্তিন সংকট:বেসামরিক নাগরিকদের গাজা ত্যাগের জন্য সময় নির্ধারণ করাই ইসরাইলের উদ্দেশ্য কুতুবদিয়ায় গলায় ফাঁস দিয়ে স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা ইসরায়েল থেকে রাষ্ট্রদূত প্রত্যাহার করলো তুরস্ক মাস্ক পরে অনুশীলনে বাংলাদেশ, দিল্লিতে ম্যাচ নিয়েও শঙ্কা গর্জনিয়ায় পানিতে ডুবে হেফজখানার ছাত্রের মৃত্যু পাকিস্তানের বিপক্ষে নিউজিল্যান্ডের রানের পাহাড়

১৭ দফায় ভাসানচরে যাচ্ছেন আরও ৯৫০ রোহিঙ্গা

ডেস্ক রিপোর্ট
  • প্রকাশিত: রবিবার, ১৬ অক্টোবর, ২০২২
  • ৪৮ পঠিত

কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের ক্যাম্পগুলো থেকে আরও ৯৬০ রোহিঙ্গা নোয়াখালীর ভাসানচরে যাচ্ছেন। প্রায় দেড় মাস পর ১৭তম দফায় রবিবার (১৬ অক্টোবর) পাঁচটি বাসে ৫০০ রোহিঙ্গা উখিয়ার ডিগ্রি কলেজ মাঠ থেকে ভাসানচরের উদ্দেশ্যে চট্টগ্রামে রওনা হয়েছেন।

একই দিনগত রাতে আরও ৪৫০ রোহিঙ্গা ভাসানচরের উদ্দেশে চট্টগ্রামে রওনা হওয়ার কথা রয়েছে। সোমবার (১৭ অক্টোবর) সকালে নৌবাহিনীর জাহাজযোগে এসব রোহিঙ্গা ভাসানচরে পৌঁছাবেন।

এসব তথ্য জানান অতিরিক্ত শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মোহাম্মদ সামছু-দ্দৌজা নয়ন। তিনি বলেন, ‘প্রায় দেড় মাস পর কক্সবাজারের ক্যাম্পগুলো থেকে ৯৫০ রোহিঙ্গা ভাসানচরে যাচ্ছেন। ইতোমধ্যে ৫০০ রোহিঙ্গা ভাসানচরের উদ্দেশ্যে উখিয়া থেকে চট্টগ্রামে রওনা হয়েছেন। বাকিরা রাতেই রওনা হবেন।’

রোহিঙ্গারা উখিয়া ডিগ্রি কলেজ মাঠ থেকে চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছেন জানিয়ে ৮-আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) সহকারী পুলিশ সুপার মো. ফারুক আহমেদ বলেন, ‘৫০০ রোহিঙ্গা ভাসানচরের উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছেন। রাতে আরও ৪৫০ রোহিঙ্গা রওনা হবেন। ভাসানচরে উন্নত জীবনযাপনের কথা শুনে আগ্রহ বেড়েছে রোহিঙ্গাদের।’

২০২০ সালের ডিসেম্বর থেকে ১৬ দফায় প্রায় ৩০ হাজারের বেশি রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে পাঠায় সরকার। এছাড়া অবৈধভাবে মালয়েশিয়া যাওয়ার চেষ্টাকালে ৩০৬ রোহিঙ্গাকে সমুদ্র থেকে উদ্ধার করে ভাসানচরে পাঠানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর নৃশংসতা শুরু হলে পরের কয়েক মাসে অন্তত আট লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে আসেন। এর আগে আসেন আরও কয়েক লাখ। বর্তমানে উখিয়া ও টেকনাফের ৩৪টি আশ্রয়শিবিরে নিবন্ধিত রোহিঙ্গার সংখ্যা সাড়ে ১১ লাখ। এরই মধ্যে রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে নেওয়ার লক্ষ্যে একটি প্রকল্প নেয় সরকার। আশ্রয়ণ-৩ নামে প্রকল্পটি বাংলাদেশ নৌবাহিনীকে বাস্তবায়নের দায়িত্ব দেওয়া হয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Let's check your brain 30 − 24 =

একই ধরনের আরও সংবাদ
© All rights reserved 2022 CHT 360 degree